ই-পাসপোর্ট কি? ই-পাসপোর্টের সুবিধা ও আবেদনের নিয়ম

E‑Passport: ই-পাসপোর্ট কি? ই-পাসপোর্টের সুবিধা ও আবেদনের নিয়ম

আচ্ছালামু আলাইকুম প্রিয় দর্শক - আজকের আইডিয়ার পক্ষ থেকে আপনাকে স্বাগতম। আজকে আমি আপনাদের মাঝে ই-পাসপোর্ট কি? ই-পাসপোর্টের সুবিধা ও আবেদনের নিয়ম নিয়ে আলোচনা করব।

ই-পাসপোর্ট কি? ই-পাসপোর্টের সুবিধা ও আবেদনের নিয়ম সম্পর্কে আরো জানতে গুগলে সার্চ করতে পারেন অথবা আমাদের ওয়েব সাইটে অন্যান্য পোস্টগুলো পড়তে পারেন। তো চলুন আমাদের আজকের মূল বিষয়বস্তুগুলো এক নজরে পেজ সূচিপত্রতে দেখে নেয়া যাকঃ

আমরা সবাই জানি যে বিদেশ ভ্রমণের জন্য পাসপোর্ট একটি অপরিহার্য ডকুমেন্ট, কিন্তু প্রশ্ন জাগে যে ই-পাসপোর্ট কি? এর সুবিধা কী হবে, কীভাবে এই ই-পাসপোর্ট সাধারণ পাসপোর্ট থেকে আলাদা বা কীভাবে ই- পাসপোর্ট কাজ করবে।

ই-পাসপোর্ট কি? ই-পাসপোর্টের সুবিধা ও আবেদনের নিয়ম

আজকের নিবন্ধে, আমরা আপনাকে এই সমস্ত প্রশ্নের বিস্তারিত উত্তর দেব, তাই আপনাকে আমাদের আর্টিকেল শেষ পর্যন্ত পড়তে হবে। তাহলে দেখা যাক ই-পাসপোর্ট আসলে কি? (what is e-passport in Bangla).

ই-পাসপোর্ট কি?

ই-পাসপোর্টটি হবে সাধারণ পাসপোর্টের একটি ডিজিটাল সংস্করণ, যাতে একটি রেডিও ফ্রিকোয়েন্সি আইডেন্টিফিকেশন (RFID) চিপ থাকবে, এই চিপে পাসপোর্ট করা ব্যক্তির সমস্ত বায়োমেট্রিক ডেটা সংরক্ষণ করা হবে, যাতে এই পাসপোর্ট নিরাপদ থাকবে। এবং পাসপোর্টের নামে অপরাধ রোধ করা যাবে।

চিপটি আকারে ছোট হবে এবং এতে 64 কিলোবাইট পর্যন্ত মেমরি স্পেস থাকবে, E-pasport এর পূর্ণ রূপ হল “ Electronic passport”  এই পাসপোর্টে ইনস্টল করা চিপের কারণে ডেটা সম্পর্কিত সুরক্ষা আরও বৃদ্ধি হবে।

ই-পাসপোর্টের সুবিধা কী?

ই-পাসপোর্ট ইস্যু করার একমাত্র উদ্দেশ্য হল ভ্রমণকে আরও সহজ করা, ডেটা সুরক্ষা নিশ্চিত করা।

  • ই-পাসপোর্টের সবচেয়ে বড় সুবিধা হল এটি বায়োমেট্রিক ডেটা রেকর্ড করবে, যা ডেটা চুরি এবং জালিয়াতি রোধ করবে।
  • এই পাসপোর্টের মাধ্যমে ইমিগ্রেশন প্রক্রিয়া সহজ করা হবে।
  • এতে বায়োমেট্রিক ফিচার থাকায় সব নাগরিকের তথ্য থাকবে গোপনীয় ও সুরক্ষিত।
  • সাধারন পাসপোর্ট ভেরিফিকেশনে অনেক সময় লাগে, ই-পাসপোর্ট স্ক্যান করতে কম সময় লাগে বলে এতে সময় বাঁচবে।
  • এই পাসপোর্টের ডেটা কেউ সরাতে পারবে না।

কোন কোন দেশে ই-পাসপোর্ট ব্যবহার করা হচ্ছে?

বিশ্বের প্রায় ১২০টি দেশে ই-পাসপোর্ট ব্যবহার করা হচ্ছে, 1998 সালে, মালয়েশিয়া দেশে প্রথম ই-পাসপোর্ট ইস্যু করা হয়েছিল, তার পরে অনেক উন্নত দেশ যেমন জাপান, ব্রিটেন, জার্মানি, আমেরিকা, তাদের সবকটি দেশে। এটি তার নাগরিকদের জন্যও জারি করেছে।

যেকোনো ভ্রমণকারী আন্তর্জাতিক ভ্রমণের ডকুমেন্টস হিসেবে ই-পাসপোর্ট ব্যবহার করতে পারেন। এই পাসপোর্টটি নাগরিক এবং সরকার উভয়ের জন্যই অত্যন্ত সহায়ক হবে কারণ এই ইলেকট্রনিক পাসপোর্ট নিরাপত্তা বাড়াবে এবং সেইসাথে ভ্রমণের সময় ভেরিফাই প্রক্রিয়াকে দ্রুত করবে।

ই-পাসপোর্টের জন্য কিভাবে আবেদন করবেন?

আপনি যদি বাংলাদেশের নাগরিক হন এবং ই-পাসপোর্টের জন্য আবেদন করতে চান, তাহলে আমাদের উল্লেখিত নিয়ম অনুসরণ করে আপনার আবেদন করুন।

  • ই-পাসপোর্ট আবেদনের জন্য প্রথমে আপনি পাসপোর্ট সেবার অফিসিয়াল ওয়েবসাইটে যান। ওয়েবসাইট লিংক "epassport.gov.bd"
  • এর পরে 'Directly to online application' এ ক্লিক করুন।
  • এর পরে আপনার সমস্ত তথ্য পূরণ করুন এবং 'Continue' এ ক্লিক করুন।
  • এরপর আপনাকে ই-মেইল ও পুরণ করতে বলবে, সেটি সম্পুর্ন করুন।
  • এরপর আপনাকে আপনার ব্যাক্তিগত তথ্য নাম,ফোন নাম্বার দিতে হবে।
  • এভাবে ধাপে ধাপে এটি সম্পুর্ন করুন।
  • এই প্রক্রিয়াটি সম্পন্ন হওয়ার পরে আপনাকে ই-মেইল করে জানানো হবে।

বাংলাদেশে প্রথম কবে ই-পাসপোর্ট ব্যবহার করা হয়?

প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা ২০২০ সালের ২২ জানুয়ারী বঙ্গবন্ধু আন্তর্জাতিক সম্মেলন কেন্দ্রে একটি সম্মেলনে ই-পাসপোর্ট বিতরণের জন্য সেটা উদ্বোধন করেছিলেন, তারপরে এই পাসপোর্টটি বাংলাদেশ পাসপোর্ট প্রকল্পের অধীনে ইলেকট্রনিক পাসপোর্ট জারি করা হয়েছে।

ই-পাসপোর্টের বৈশিষ্ট্য?

ই-পাসপোর্টের অনেক বৈশিষ্ট্য রয়েছে যা নিম্নে উল্লেখ করা হল

  • এই ই-পাসপোর্টটি আবেদনকারীর বয়সের উপর নির্ভর করে 5 থেকে 10 বছরের জন্য বৈধ হবে।
  • এতে আবেদনকারীর বয়স সংক্রান্ত তথ্য থাকবে।
  • পাসপোর্ট চিপে আবেদনকারীর ছবি এবং আঙুলের ছাপ থাকবে।
  • এই পাসপোর্টের চিপে লেখা তথ্য কেউ পরিবর্তন করতে পারবে না।
  • এতে আবেদনকারীর বায়োমেট্রিক তথ্যও থাকবে।

ই-পাসপোর্ট এবং সাধারণ পাসপোর্টের মধ্যে পার্থক্য?

সাধারণ পাসপোর্ট এবং ই-পাসপোর্টের মধ্যে অনেক পার্থক্য আছে, তাহলে চলুন জেনে নিই দুটির মধ্যে পার্থক্য কী।

  • ই-পাসপোর্টে একটি চিপ থাকবে যাতে কেউ তথ্য কপি করতে না পারে, যেখানে সাধারণ পাসপোর্ট একটি প্রিন্টেড বুকলেটের মতো, যেটি কপি করা খুব সহজ।
  • ই-পাসপোর্টের উভয় দিকেই কভার থাকবে এবং এর ভিতরে একটি ছোট সিলিকন চিপ থাকবে।
  • সাধারণ পাসপোর্টে আবেদন করার সময় একজনকে স্বাক্ষর করতে হয় যা নকল করা যায় তবে ইলেকট্রনিক পাসপোর্টে ডিজিটাল স্বাক্ষর থাকবে যা চিপে সংরক্ষণ করা হবে যা নকল করা অসম্ভব।
  • একটি সাধারণ পাসপোর্টে, আবেদনকারীর সমস্ত তথ্য সহজেই পড়া যায় তবে একই ইলেকট্রনিক পাসপোর্টে চিপ স্ক্যান না করে আবেদনকারীর তথ্য দেখা সম্ভব নয়।
  • সাধারণ পাসপোর্টে, আবেদনকারীর একটি কাগজের ছবি থাকে, যা জালিয়াতি করা খুব সহজ, তবে ইলেকট্রনিক পাসপোর্টে, আঙুলের ছাপ এবং ছবি মেমরির জায়গায় সংরক্ষণ করা হবে যাতে জালিয়াতি রোধ করা যায়।

ই-পাসপোর্টের জন্য কী কী কাগজপত্র প্রয়োজন?

ই-পাসপোর্টের জন্য, সাধারণ পাসপোর্ট তৈরির জন্য সমস্ত একই ডকুমেন্টস প্রয়োজন হবে। আপনি যদি প্রথমবার পাসপোর্টের জন্য আবেদন করেন, তাহলে আপনার অবশ্যই কিছু গুরুত্বপূর্ণ কাগজপত্র থাকতে হবে যা নীচে উল্লেখ করা হয়েছে:-

  • বিদ্যুৎ বিল/পানি বিল
  • আইডি কার্ড

আপনি জন্মতারিখের জন্য নীচের উল্লেখিত নথিগুলির যে কোনও একটি সংযুক্ত করতে পারেন;

  • জন্মনিবন্ধন
  • পাসপোর্ট সাইজ ছবি
  • ভোটার আইডি কার্ড
  • SSC পরিক্ষার সার্টিফিকেট

পুরোনো পাসপোর্টের তথ্য

আপনি যদি পাসপোর্ট রি-ইসু করতে চান তবে এর জন্য আপনাকে আলাদা তথ্য সরবরাহ করতে হবে যা নীচে উল্লেখ করা হয়েছে,

  • পাসপোর্টের প্রথম ও শেষ পৃষ্ঠার কপি
  • ইসিআর বা নন-ইসিআর পৃষ্ঠা
  • মূল পাসপোর্ট
  • ওভারভিউ পৃষ্ঠা

ই-পাসপোর্ট ইস্যু হলে সরকারের কাছে সকলের তথ্য-উপাত্ত নিরাপদ থাকবে, যা ভবিষ্যতে অবৈধ কর্মকাণ্ড রোধ করবে।

আজকের আর্টিকেলের মাধ্যমে আমরা আপনাদের জানালাম ই-পাসপোর্ট কি? এর সুবিধা কী হবে, কীভাবে এই ই-পাসপোর্ট সাধারণ পাসপোর্ট থেকে আলাদা বা কীভাবে এই পাসপোর্ট কাজ করবে ইত্যাদি। আমরা আশা করি আপনি আমাদের এই আর্টিকেল পছন্দ করেছেন। এটি আপনার বন্ধুদের সাথে এবং সোশ্যাল মিডিয়াতেও শেয়ার করুন।

আপনার আসলেই আজকের আইডিয়ার একজন মূল্যবান পাঠক। ই-পাসপোর্ট কি? ই-পাসপোর্টের সুবিধা ও আবেদনের নিয়ম এর আর্টিকেলটি সম্পন্ন পড়ার জন্য আপনাকে অসংখ ধন্যবাদ। এই আর্টিকেলটি পড়ে আপনার কেমন লেগেছে তা অবশ্যই আমাদের কমেন্ট বক্সে কমেন্ট করে জানাতে ভুলবেন না।

পরবর্তী পোস্ট পূর্ববর্তী পোস্ট
কোন মন্তব্য নেই
এই পোস্ট সম্পর্কে আপনার মন্তব্য জানান

দয়া করে নীতিমালা মেনে মন্তব্য করুন - অন্যথায় আপনার মন্তব্য গ্রহণ করা হবে না।

comment url