Bounce Rate কি? বাউন্স রেট কমানোর সহজ উপায়

Bounce Rate কি? বাউন্স রেট কমানোর সহজ উপায়, বাউন্স রেট কাকে বলে? (What is Bounce Rate?) ওয়েবসাইট এর বাউন্স রেট বাড়ার কারণ কি কি?

আচ্ছালামু আলাইকুম প্রিয় দর্শক - আজকের আইডিয়ার পক্ষ থেকে আপনাকে স্বাগতম। আজকে আমি আপনাদের মাঝে Bounce Rate কি? বাউন্স রেট কমানোর সহজ উপায় নিয়ে আলোচনা করব।

Bounce Rate কি? বাউন্স রেট কমানোর সহজ উপায় সম্পর্কে আরো জানতে গুগলে সার্চ করতে পারেন অথবা আমাদের ওয়েব সাইটে অন্যান্য পোস্টগুলো পড়তে পারেন। তো চলুন আমাদের আজকের মূল বিষয়বস্তুগুলো এক নজরে পেজ সূচিপত্রতে দেখে নেয়া যাকঃ

বাউন্স রেট কি? What is bounce rate in Bangla?  আপনার ব্লগ বা ওয়েবসাইট থাকলে বাউন্স রেট সম্পর্কে জানতে হবে। কারণ বাউন্সিং রেট ওয়েবসাইটের র‌্যাঙ্কিংয়ে খুবই গুরুত্বপূর্ণ ভূমিকা পালন করে।

Bounce Rate কি? বাউন্স রেট কমানোর সহজ উপায়

এই আর্টিকেলে আপনি শিখবেন বাউন্স রেট কি? ওয়েবসাইটের বাউন্স রেট কেমন হওয়া উচিত? কিভাবে আপনার ওয়েবসাইটের বাউন্স রেট কমাতে হয়?

প্রায়শই নতুন ব্লগাররা বাউন্স রেট এর নাম শুনে একটু বিভ্রান্ত হন। তবে টেনশন নিবেন না। কারণ এই আর্টিকেলটি পড়ার পর আপনি বাউন্সিং রেট এর নামের সাথে ভালোভাবে পরিচিত হবেন। আপনি অবশ্যই Google Analytic বা অন্যান্য SEO টুল সহ সাইটে লেখা বাউন্স রেট দেখে থাকবেন।

এসইও এর ক্ষেত্রে বাউন্স রেট একটি অত্যন্ত গুরুত্বপূর্ণ ফ্যাক্টর। কারণ বাউন্স রেট আপনার ব্লগ বা ওয়েবসাইটের ট্রাফিক, র‌্যাঙ্কিং এবং আয়ের উপর সরাসরি প্রভাব ফেলে। অতএব, আপনার সাইটের বাউন্স রেট সম্পর্কে গুরুত্ব দেওয়া খুবই গুরুত্বপূর্ণ।

আপনি আপনার ব্লগের সার্চ রেজাল্ট উন্নত করতে চান। তবে আপনাকে আপনার ব্লগের বাউন্স রেট কমাতে হবে। কিছু গুরুত্বপূর্ণ বিষয় মাথায় রেখে আপনি সহজেই আপনার সাইটের বাউন্স রেট কমাতে পারেন।

আসুন আমরা আপনাকে সহজ ভাষায় বোঝানোর চেষ্টা করি যে বাউন্সিং রেট কি? বাংলায় বাউন্স রেট কি ? বাউন্স রেট কি হওয়া উচিত? কিভাবে আপনার ওয়েবসাইটের বাউন্সিং রেট কমাতে হয়?

বাউন্স রেট কি? What is bounce rate in Bangla?

বাউন্স এবং রেট দুটি শব্দের মিশ্রণে bounce rate উচ্চারিত হয়। বাউন্স মানে 'ফিরে আসা,প্রস্থান করা'। তাই আমরা বলতে পারি যে বাউন্স রেট হল ব্লগ বা ওয়েবসাইটের ফিরে যাওয়া দর্শকের গড় পরিসংখ্যান।

একটি উদাহরণ দিয়ে বোঝা যাক। যখন একজন ভিজিটর আপনার ব্লগের একটি পেজে আসে এবং শুধুমাত্র সেই পেজ দেখারপর ফিরে যায়। তাকে বলা হয় Bounce Rate।

সহজ কথায়, বাউন্স রেট হল সেই সকল ভিজিটরের সংখ্যা যারা আপনার ব্লগে এসে ফিরে চলে । আপনার ব্লগের অন্যপেজ গুলো দেখে না।

ধরুন আপনি আমার ওয়েবসাইটের একটি পেজে ভিজিট করেছেন এবং ভিজিট করার পরে আপনি সেই পেজটি পড়ার পরেই বেরিয়ে গেছেন। এই ধরনের ভিজিটরের গড় পরিমাপকে বাউন্স রেট বলা হয়।

বাউন্স রেট এর সংজ্ঞা

যে কোনো ব্লগ বা ওয়েবসাইটে আসা ভিজিটর যারা আপনার সাইটের যেকোনো একটি ওয়েব পেজ দেখার পর আপনার সাইট থেকে কম সময়ে বের হওয়া চলে  গেলে সেই ভিজিটরের সংখ্যার গড় পরিমাপকে বাউন্স রেট বলা হয়।

ধরুন আপনার সাইটের বাউন্স রেট ৭০%। তাহলে এর মানে হল আপনার সাইটের ৭০ শতাংশ ভিজিটর এই রকম ভাবে চলে যায়।

আপনার সাইটের বাউন্স রেট যত কম হবে। আপনার সাইটের গ্রোথে জন্য তত ভাল হবে। আমি আশা করি What is bounce rate in Bangla?  বাউন্স রেট কি খুব ভালো করেই বুঝতে পেরেছেন।

চলুন এবার জেনে নেওয়া যাক বাউন্স রেট কমানোর উপায় সম্পর্কে। কিন্তু তার আগে ব্লগের বাউন্স রেট কেন বাড়ে? এই বিষয়েও আপনার জানা হওয়া উচিত।

বাউন্স রেট বাড়ার কারণ কী?

ব্লগারের কিছু ভুলের কারণে ওয়েবসাইটের বাউন্স রেট বেড়ে যায়। আপনাকে শুধু সেই ভুলগুলোর দিকে মনোযোগ দিতে হবে। বাউন্স রেট বৃদ্ধির কিছু কারণ নিচে দেওয়া হল।

    • ব্লগে নিম্নমানের কন্টেন্ট পাবলিশ করা।
    • আপনার ব্লগ বা ওয়েবসাইটের ডিজাইন সুন্দর না হওয়া
    • ওয়েবসাইটের লোডিং স্পিড বেশি হওয়া।
    • ওয়েবসাইটে ইন্টারনাল লিঙ্কগুলি সঠিকভাবে ব্যবহার না করা।
    • ট্রাফিক পেতে ভুল উপায়ে কীওয়ার্ড ব্যবহার করা।
    • ভিজিটর আপনার ব্লগের পোস্টের কোয়ালিটি পছন্দ না করা।
    • পোস্টে হেডিং সঠিকভাবে ব্যবহার না করা।
    • ব্লগ বা ওয়েবসাইটে কম পোস্ট পাব্লিশ করা।

হাই বাউন্স রেট ওয়েবসাইটে কী প্রভাব ফেলে?

শুধু বুঝতে হবে যে হাই বাউন্স রেট আপনার সাইটে একটি খারাপ প্রভাব ফেলে। কারণ বেশী বাউন্স রেট থাকার একটি সহজ অর্থ হচ্ছে। পাঠক'রা আপনার সাইটে বেশিক্ষণ থাকে না। অর্থাৎ ব্যবহারকারীরা আপনার ব্লগ তাড়াতাড়ি ছেড়ে চলে যাচ্ছে।

ব্লগ তাড়াতাড়ি ছেড়ে দেওয়ার কারণে, গুগল বা অন্যান্য সার্চ ইঞ্জিনগুলি মনে করে যে আপনার সাইটের আর্টিকেল ভাল নয়। যার কারণে আপনার সাইটে র‍্যংক করে না।

আপনার সাইটের একই পোস্ট পড়ার পর ভিজিটর চলে যাওয়ার কারণে সার্চ ইঞ্জিনের চোখে আপনার সাইটের সুনাম কমে যায়। যা আপনার সাইটের র‌্যাঙ্কিংকে প্রভাবিত করে।

তাই আপনার সাইটের বাউন্স রেট যতটা সম্ভব কম করার চেষ্টা করুন। বাউন্স রেট কিভাবে কমানো যায়? চলুন বিস্তারিত জানার চেষ্টা করি।

কিভাবে বাউন্স রেট কমানো যায়?

আপনার সাইটে হাই বাউন্স থাকলে। এটা কমানো খুবই জরুরি। অন্যথায় আপনার সাইটের র‌্যাঙ্কিং নিচে চলে যাবে। আসুন জেনে নেই কোন পদ্ধতি অবলম্বন করে আপনি আপনার সাইটের বাউন্স রেট কমাতে পারেন।

1. গুণমান এবং মূল্যবান কন্টেন্ট পাবলিশ করুন

আপনি যদি আপনার সাইটে গুণমান এবং মূল্যবান কন্টেন্ট পাব্লিশ করেন। তবে আপনার ব্লগের সুনাম অনেকটাই বাড়িয়ে দেবে। বলা হয় "Content is King" ।তাই, আপনার সাইটেও ভালো মানের এবং মূল্যবান কন্টেন্ট একাধিক পাবলিশ করা উচিত।

যদি দর্শকরা আপনার সাইটের মূল্যবান আর্টিকেল পাই।তাহলে তারা অবশ্যই আপনার সাইট পছন্দ করবে। যে কোন ভিজিটরের জন্য সঠিক কন্টেন্ট। যা দর্শকদের চাহিদা পূরণ করে এবং সঠিক তথ্য প্রদান করে।

আপনার আর্টিকেল পয়েন্ট টু পয়েন্ট সহজ ভাষায় লিখুন এবং সেই পোস্টের আকার কমপক্ষে ৭০০ থেকে ১৫০০ শব্দের মধ্যে রাখার চেষ্টা করুন। গুণমান এবং মূল্যবান আর্টিকেল আপনার সাইটকে র‌্যাঙ্ক করার পাশাপাশি সাইটের বাউন্স রেট কমাতে সাহায্য করে। বাউন্স রেট কমতে অবশ্যই কিছুটা সময় লাগবে। তবে আপনি অবশ্যই সফলতা পাবেন।

2. Internel Linking -এর উপর ফোকাস করুন

সাইটের বাউন্স রেট কমানোর জন্য ইন্টারনাল লিঙ্কিং একটি গুরুত্বপূর্ণ উপায়। আপনার পোস্টে সঠিকভাবে linterner লিঙ্কিং করে ব্লগের বাউন্স রেট কমানো যেতে পারে।

ইন্টারনাল লিঙ্কিং মানে একটি ব্লগ পোস্টে আপনার নিজের ব্লগের অন্য পোস্টে লিঙ্ক যোগ করা। পোস্টের মাঝখানে ইন্টারনাল লিংকিং করলে সঠিকভাবে করবেন।এতে ধীরে ধীরে আপনার ব্লগের বাউন্স রেট কমতে থাকবে।

internal linking করার সময়, আপনাকে অবশ্যই একটি বিশেষ বিষয় মনে রাখতে হবে। আপনি যখন একটি পোস্টে ইন্টারনাল লিঙ্কিং করেন তখন সেই পোস্টের সাথে সম্পর্কিত আপনার ব্লগের অন্য পোস্টে একটি লিঙ্ক যুক্ত করার চেষ্টা করুন।

ধরুন আপনি পিকনিক সম্পর্কে একটা আর্টিকেল লিখলেন এবং সেই আর্টিকেলে "সেরা ১০টি পিকনিক স্পোর্টের তালিকা" সম্পর্কে অন্য আর্টিকেলের লিংক দিবেন এতে একজন ভিজিটর দুটো পোস্ট পড়তে আগ্রহী হবে। এতে করে বাউন্স রেট অনেক কমে যাবে।

3. Page Load time কমান

ওয়েবসাইট স্লো বাউন্স রেট বাড়ানোর অন্যতম প্রধান কারণ। আসলে, ওয়েবসাইটের পেজ লোডের সময় বেশি হওয়ার কারণে, দর্শকরা আপনার এসে পৌঁছায় না। এটি কমিয়ে ফেললে বাউন রেইট কমবে।

4. ওয়েবসাইট লুক এবং ডিজাইন রেসপন্সিভ রাখুন

আপনি আপনার ওয়েবসাইটের লুক এবং ডিজাইন খুব সিম্পল রাখা উচিত। যাতে ভিজিটর সহজেই আপনার ওয়েবসাইটের প্রতি আকৃষ্ট হয়।

সিম্পল লুক এবং রেসপন্সিভ সাইটের কারণে ভিজিটররাও আপনার ওয়েবসাইটের আর্টিকেল পড়ে উপভোগ করবে। আপনার ভিজিটররা সহজেই আপনার সাইটে পাবলিশ করা যেকোনো পোস্ট বা ক্যাটাগরিতে যেতে পারবে। এটি আপনার সাইটের বাউন্স রেট কম করে।

আপনার সাইটের সঠিক ফন্ট, টেক্সট সাইজ এবং কালার কম্বিনেশন করা খুবই গুরুত্বপূর্ণ। কোন রঙ বা ফন্ট আপনার ভিজিটর পছন্দ হবে তা আপনাকে নিজেই বুঝতে হবে। এ ছাড়া টেক্সট সাইজ খুব ছোট রাখতে হবে না। কারণ এতে ভিজিটর আপনার কন্টেন্ট পড়তে সমস্যা হবে।

5. পোস্ট টাইটেল আকর্ষণীয় করুন

বাউন্স রেট কমানোর আরেকটি ভালো উপায় হল।আপনার ব্লগ পোস্টের টাইটেল আকর্ষণীয় রাখা। আকর্ষণীয় টাইটেলের কারণে, ভিজিটর অবশ্যই আপনার ব্লগ পোস্ট পড়বে।

তবে আকর্ষণীয় শিরোনামের পাশাপাশি ব্লগ পোস্টটিকে ইউজার ফ্রেন্ডলি করাও সমান গুরুত্বপূর্ণ। User Friendly বলতে  আপনি পোস্টে বিস্তারিতভাবে সহজ শব্দে সঠিক তথ্য ব্যাখ্যা করার চেষ্টা করুন।

কখনো কখনো আমি এট্রাক্টিভ টাইটেল পড়ার পরে একটি লিঙ্কে ক্লিক করি, আপনি নিজেও হয়ত করেছেন। কিন্তু ক্লিক করার পর আপনি পোস্টে অন্য কিছু পড়তে পাচ্ছেন। তাই এমন পরিস্থিতিতে আপনি অবশ্যই রেগে যাবেন। কিছু ব্লগার ভিউ পেতে ক্লিকবেট টাইটেল ব্যবহার করে। যা মোটেও ভালো কিছু নয়। এটিকে গুগল ক্লকিং বলে।

আপনার ব্লগ পোস্টের শিরোনাম যাই হোক না কেন আপনি পোস্টের ভিতরেও একই বিষয় নিয়ে লিখুন। এটি আপনার ব্লগে দর্শকদের আস্থা বাড়ায়। ভিজিটর আপনার একটি পোস্ট পড়ার পর, যদি তারা অন্য পোস্টের হেডিং পছন্দ করে। তবে তিনি অবশ্যই আরও পোস্টও পড়বেন।

6. আপনার ব্লগ মোবাইল ফ্রেন্ডলি করুন

বর্তমানে মোবাইল ব্যবহারকারীর সংখ্যা ডেস্কটপ ব্যবহারকারীর চেয়ে বেশি। যার কারণে আপনার ব্লগকে মোবাইল ফ্রেন্ডলি করা আপনার জন্য খুবই গুরুত্বপূর্ণ। তাই সবার আগে আপনার ব্লগকে মোবাইল ফ্রেন্ডলি করুন। যাতে আপনার ব্লগের বাউন্স রেট কমতে থাকে।

যদি দেখা যায়, আজ 70% এর বেশি দর্শক মোবাইল থেকে আসে। এমন অবস্থায় আপনার ব্লগ মোবাইল ফ্রেন্ডলি করতে হবে। এজন্য আপনাকে অবশ্যই আপনার ব্লগে মোবাইল ফ্রেন্ডলি টেমপ্লেট ব্যবহার করতে হবে।

ওয়েবসাইটের বাউন্স রেট কেমন হওয়া উচিত?

এর জন্য কোন নির্দিষ্ট নিয়ম নেই। কারণ বিভিন্ন ধরনের ওয়েবসাইটের জন্য বিভিন্ন বাউন্স রেট ভালো বলে বিবেচিত হয়।

বিভিন্ন ওয়েবসাইটের বাউন্স রেট নিম্নরূপ:-

    • ব্লগের জন্য - 50-70%
    • সার্ভিস প্রোভাইডার সাইট – 10-30%
    • লিড জেনারেট সাইট - 30-50%
    • ল্যান্ডিং পেজ - 50-70%
    • রিটেইল ওয়েব সাইট - 20-40%
    • কন্টেন্ট ওয়েবসাইট – 40-60%

আপনি যদি একটি ব্লগের মালিক হন। তাই চেষ্টা করুন আপনার ব্লগের বাউন্স রেট যেন 40 থেকে 70% এর মধ্যে হয়।

কিভাবে আপনার ওয়েবসাইটের বাউন্স রেট চেক করবেন?

আপনার ব্লগ বা ওয়েবসাইটের বাউন্স রেট চেক করার সর্বোত্তম এবং ফ্রি উপায় হল – “Google Analytic”।আপনাকে যা করতে হবে তা হল আপনার সাইটকে Google Analytics-এর সাথে এড করতে হবে । এর পর আপনি Google Analytics এর Audience সেকশনে গিয়ে আপনার সাইটের বাউন্স রেট দেখতে পারবেন।

আপনি যদি ব্লগিং করেন। তবে আপনি Google Analytic Tool এর সাথে ভালোভাবে পরিচিত হবেন। এছাড়াও, আপনি বাউন্স রেট চেক করতে পেইড টুল ব্যবহার করতে পারেন। যেমন SEMrush Tool, Ahrefs SEO Tool ইত্যাদি।

উপসংহার

আশা করি এখন বুঝতে পেরেছেন বাউন্সিং রেট কি? What is bounce rate in Bangla?  বাউন্সিং রেট কমানোর উপায় কি কি? বাউন্স রেট কি হওয়া উচিত? ব্লগিং এর জগতে একটি অত্যন্ত গুরুত্বপূর্ণ ফ্যাক্টর। আপনার সাইটের বাউন্স রেট কত কমেন্ট করে জানান।  এটি জানার পরে, আপনার অবশ্যই আপনার সাইটের বাউন্স রেটের দিকে মনোযোগ দেওয়া উচিত।

আপনি যদি এই তথ্য পেয়ে থাকেন বাংলায় বাউন্স রেট কত? এবং কিভাবে আপনার সাইটের বাউন্সিং রেট কমাতে হবে? পছন্দ হয়েছে তাই আপনাকে অবশ্যই এই নিবন্ধটি "বাংলায় বাউন্স রেট কি" আপনার সোশ্যাল মিডিয়া সাইটগুলিতে শেয়ার করতে হবে৷

আপনার আসলেই আজকের আইডিয়ার একজন মূল্যবান পাঠক। Bounce Rate কি? বাউন্স রেট কমানোর সহজ উপায় এর আর্টিকেলটি সম্পন্ন পড়ার জন্য আপনাকে অসংখ ধন্যবাদ। এই আর্টিকেলটি পড়ে আপনার কেমন লেগেছে তা অবশ্যই আমাদের কমেন্ট বক্সে কমেন্ট করে জানাতে ভুলবেন না।

পরবর্তী পোস্ট পূর্ববর্তী পোস্ট
কোন মন্তব্য নেই
এই পোস্ট সম্পর্কে আপনার মন্তব্য জানান

দয়া করে নীতিমালা মেনে মন্তব্য করুন - অন্যথায় আপনার মন্তব্য গ্রহণ করা হবে না।

comment url